১০০ বছরের পুরনো দাউদ ও চুলকানি দূর করার ১০০% ঘরোয়া উপায়

দাউদ ও চুলকানি
Share The Article

আসসালামু আলাইকুম! গুড সলিউশন লাইন হেলথ টিপস এর আরো একটি ব্লগে আপনাকে স্বাগতম। আমাদের আজকের আলোচনার বিষয় হচ্ছে “শরীরের দাউদ ও চুলকানি কিভাবে বন্ধ করা যায়” তাহলে চলুন আর অপেক্ষা কেন আমরা চুলকানি থেকে মুক্তি পাওয়ার কারণ গুলো এবং সমাধানটি জেনে নেই।

মাত্র তিন থেকে চারটি রসুনের কোয়া আপনাকে দাউদ ও চুলকানি থেকে মুক্ত করবে। আমি কিংবা আমরা কেউই চাইনা যে আমাদের শরীরে দাউদ কিংবা চুলকানি হোক। কারণ এটার কষ্ট এবং বিরক্তি তারাই বুঝে যারা এটা ভোগ করে। দাউদ থেকে বারবার চুলকানি হওয়া লাল রঙের চা তৈরি হয়ে যাওয়া এবং এটা থেকে অকেসট জ্বালাপোড়া দাউদ এর প্রথম লক্ষণ।

এবং মাঝে মাঝে এগুলো এমন জায়গায় হয় যেগুলো আমরা কাউকে বলতে পারিনা। পুরুষের ক্ষেত্রে বেশিরভাগ উরুর ভাঁজে এবং গোপন অঙ্গের আশেপাশে হয়। আমাদের আজকের টিপসটি এতই কার্যকরী একটানা তিনদিন ব্যবহারের মাধ্যমে আপনি এর সুফল ভোগ করতে পারবেন।

এটা কিভাবে আপনাকে তৈরি করতে হবে তা জানার জন্য আমাদের পুরো আর্টিকেলটি পড়ুন এবং সবশেষে আপনার মতামত জানিয়ে একটি কমেন্ট করবেন আশা করি।

প্রথমেই আপনাকে নিতে হবে জলপাইয়ের তৈল। যেটাকে আমরা অলি ভয়েল বলে থাকি। দাউদ এবং চুলকানির জন্য এন্টি-ভাইরাল এবং অ্যান্টি-ফাঙ্গাল উপাদান খুব উপকারী। এটা দাউদ ও চুলকানির স্থানে আরাম দেয়।

দাউদ ও চুলকানির রেমেডি কিভাবে তৈরি করব?

প্রথমে আপনাকে একটি খালি বাড়িতে এক চামচ (Olive oil) “অলিভ অয়েল” ঢালতে হবে। অলিভ অয়েল তৈল আশা করি প্রত্যেক বাসা বাড়িতেই থাকে। কিন্তু যদি আপনি অলিভ অয়েল ব্যবহার করতে না চান সে ক্ষেত্রে নারিকেল তৈল এর ব্যবহারও এখানে করতে পারবেন! কিন্তু শীতকালে এটা জমে যায় এজন্য আমরা এখানে অলিভ অয়েল ব্যবহার করার রিকমেন্ড করব।

এরপর আপনার দরকার (Garlic) “রসুন“। আপনাকে এবার তিন থেকে চারটি রসুনের কোয়া দিতে হবে। বন্ধুরা রসুনের কোয়া দাউদ এবং চুলকানি থেকে বিরত রাখে। এবং রসুন আমাদের শরীরের দাউদ ও চুলকানিবৃদ্ধি পেতে দেয় না। পাশাপাশি এটা “Antibacterial” অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল হওয়ার কারণে আমাদের আক্রান্ত স্থানে আরাম দেয় এবং বারবার হওয়ার চুলকানির প্রসারণ বন্ধ করে। যার জন্য ফাংগাল ইনফেকশনে আক্রান্ত স্থানে আরাম পায়।

তিন থেকে চারটি রসুনের কোয়া কে খোসা ছাড়িয়ে। সেগুলো বেটে নিতে হবে। এবং এটা আনুমানিক আধা চামচ এর মত হবে। এখন এটাকে আমরা অলিভ অয়েল এর সাথে মিশিয়ে দিব। এবং তৃতীয় এবং শেষ যে জিনিসটি প্রয়োজন হবে তা হচ্ছে (Aloevera Jel) “অ্যালোভেরা জেল“। বন্ধুরা চর্মরোগ জড়িত যেকোন সমস্যার জন্য অ্যালোভেরা জেল খুবই কার্যকরী। এতে বিভিন্ন ধরনের সুগার প্রোটিন থাকে। যা ফাংগাল ইনফেকশনের বিরুদ্ধে খুব ভালো কাজ করে।

এখানে আপনাকে একটি সতেজ অ্যালোভেরা পাতা থেকে জেল বের করতে হবে এ থেকে আনুমানিক এক চামচ এর মত হয়ে যাবে। এবং আমাদের পূর্বে বাটিতে রাখা উপাদান গুলোর ভিতরে ফেলে দিতে হবে। এখন আমরা এই তিনটি উপাদান ভালো করে একটি বাটিতে মিশ্রণ করব। একটি চামচের সাহায্যে আনুমানিক ১ থেকে ২ মিনিট ভালোভাবে মিশ্রণ করুন। যাতে এ থেকে এমন একটা জেল বের হয় যেটা আমাদের দাউদ চুলকানি থেকে আরাম দেবে।

দাউদ ও চুলকানির আক্রান্ত স্থানে এটা কিভাবে প্রয়োগ করব?

আপনি রেডি তো?

একবার দাউদ চুলকানি হলে দ্বিতীয় বার এটা হওয়ার সম্ভাবনা থেকেই যায়। এতে করে আপনি যেটা পারেন তা হচ্ছে সপ্তাহে কমপক্ষে দুইবার নিম পাতা পানিতে ফুটিয়ে সেই পানি দিয়ে গোসল করবেন।

কারণ বন্ধুরা নিমের রোধ প্রতিরোধ ক্ষমতা সম্পূর্ণ গুণ থাকে। যা শরীরে বারবার আক্রমণ করা থেকে “Fungal infections” ফাঙ্গাস ইনফেকশন কে বন্ধ করে। এবং দাউদ এর সমস্যা থেকে মুক্তির জন্য এই এরে বিডিটি প্রয়োগ করবেন।

আক্রান্ত স্থানে একটি চামচের সাহায্যে আমাদের তৈরি রেমেডি ভালোভাবে লাগান। যেখানে অনেক চুলকানি হয়েছে কিংবা লাল রঙের সংক্রমণ দেখা দিচ্ছে।

এবং আপনার যদি মনে হয় শরীরের কোথাও ফাঙ্গাস ইনফেকশন রয়েছে ত্বক রুক্ষ সূক্ষ্ম সেখানে এটা লাগান। লাগানোর সময় খেয়াল রাখবেন যাতে এটা আক্রান্ত স্থানে ভালোভাবে লাগে।

আমাদের সম্পর্কে জানতে এখানে ক্লিক করুন!

আক্রান্ত স্থানে তো লাগাবেন অবশ্যই তার সাথে এর আশেপাশেও ভালো ভাবে লাগাবেন যাতে সংক্রমণ না ছড়ায় এবং দ্রুত ঠিক হয়ে যায়। এটাকি অবশ্যই ভালোভাবে আপনার ত্বকে লাগাতে হবে! এটি লাগানোর পর কম করে হলেও ২০ মিনিট আপনাকে এভাবে রেখে দিতে। এরপরে পরিষ্কার পানি দিয়ে গোসল করে ফেলতে হবে অথবা আক্রান্ত স্থানটি ধুয়ে ফেলতে হবে।

উল্লেখযোগ্য যে পানি যেন খুব গরম কিংবা খুব ঠাণ্ডা না হয়। এবং এটি ধুয়ে ফেলার সময় কোন প্রকার লোশন কিংবা কোন প্রকার সাবান ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকবেন। প্রয়োগের ২৪ ঘন্টার মধ্যেই আপনি এর সুফল উপভোগ করতে পারবেন। এবং এর সংক্রমণ বন্ধ হবে।

এটি একটানা তিনদিন ব্যবহারে আপনার দাউদ চুলকানির অর্ধেক সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে। এবং এক সপ্তার মধ্যে খারাপ থেকে খারাপ দাউদ চুলকানির ঠিক হয়ে যাবে।

আমাদের এই আর্টিকেলটি দ্বারা আপনার যদি কোন উপকার হয়ে থাকে তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করে আমাদের জানিয়ে দিন।

ইউটুবে দাউদ ও চুলকানি নিয়ে ভিডিও দেখতে এখানে ক্লিক করুন

Author: Good Solution Line Health Tips

"Gslht" whose complete form is "Good Solution Line Health Tips" We all want our body to be good; we want our body and mind to be fresh all the time. If the body is good, everyone's mind becomes good.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *