ভাত বেশি খেলে কি হয়? জানলে আপনি অবাক হয়ে যাবেন নিঃসন্দেহে

ভাত বেশি খেলে কি হয়
ad

ভাত বেশি খেলে কি হয় জানেন কি আপনি? ভাত বাঙালির প্রধান খাবার। কিন্তু কোন বয়সে কতটুকু খাবার প্রয়োজন তা নিয়ে আজকের আর্টিকেল হতে যাচ্ছে, সুতরাং পুরো আর্টিকেলটি পড়ুন এবং সাথে থাকুন।

ভাত খাওয়ার আগে যদি এই বিষয়টি মেনে চলেন তাহলে নিশ্চিন্তে অসুখের হাত থেকে রক্ষা পাবেন। স্বাস্থ্য সচেতন মানুষ মাত্রই আঁতকে উঠি ভাতের নাম শুনে, মনে করা হয় ভাত বুঝি ওজন বাড়ার একমাত্র কারণ। আর যদি পাশাপাশি অসুখের কোন প্রসঙ্গ আসে তাহলে প্রথমেই কাট গড়াতে দাঁড় করানো হয় ভাত কে। দেখা যায় খাবার তালিকা থেকে কেটে ফেলা হয় ভাতের নাম।

ভাত খাওয়া আমাদের শরীরের পক্ষে যথেষ্ট উপকারী তা হয়তো অনেকেই জানেন না কিন্তু সমস্যা হচ্ছে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই অপকারী হিসেবে দেখানো হচ্ছে। একথা ঠিক যে এশিয়া মহাদেশে ডায়াবেটিকস আক্রান্তের সংখ্যা অনেক বেশি। এক্ষেত্রে ভাত খাওয়ার অভ্যাস কে দোষ দেয়া হয়। এর পাশাপাশি আবার যোগ হয়েছে স্ক্রতাও, এইসব এর কারণ হিসেবে একমাত্র দায়ী করা হয় ভাতকে। ভাত বেশি খেলে কি হয়?

ভাত বেশি খেলে কি হয়?

চাল বেটে ভাতের পুষ্টিগুণের তারতম্য হয়, আধা কাপ ভাতে ১২৫-১৫০ কিলোক্যালরি পাওয়া যায় এতে আছে ৭% ফ্যাট ৮৫% কার্বোহাইড এবং ৮ শতাংশ প্রোটিন। ভাতে সোডিয়াম বেশি। কিন্তু পটাশিয়াম খুবই কম তবে ভাত কিন্তু কোলেস্টরেল বর্জিত একটি খাবার। ভাতে রক্তে লিপিডের একটি উপাদান রয়েছে যার নাম “ট্রাইটলিচাইট”, ভাত খেলে এটি কিন্তু বেড়ে যায়।

কোন বয়সে কতটুকু ভাত খাওয়া জরুরি?

ভাত বেশি খেলে কি হয়
কোন বয়সে কতটুকু ভাত খাওয়া জরুরি?

কোন বয়সে কতটুকু ভাত খাওয়ার জন্য কতটুকু ভাত খেলে আমাদের শরীরের মিটিয়ে যাওয়া ডায়াবেটিকস কিংবা অন্যান্য রোগের বৃদ্ধি পাবে না। এবং শরীর সুস্থ থাকবে ভাত খেয়েও।

  • শৈশবে: দিনে এক থেকে দেড় কাপ ভাত খাওয়া প্রয়োজন।
  • বয়সন্ধিকালে: দিনে পাঁচ থেকে সাত কাপ ভাত খাওয়া প্রয়োজন।
  • কিশোর বয়সে: সারাদিনে ৬-৮ কাপ ভাত খাওয়া প্রয়োজন।
  • প্রাপ্ত বয়স্কদের: দিনে ৮-১২ কাপ ভাত খাওয়া প্রয়োজন।
  • বৃদ্ধ বয়সে: দৈনিক ৬ কাপ প্রয়োজন।

বিঃদ্রঃ এক্ষেত্রে কাব বলতে চাই আর কাউকে বোঝানো হয়েছে। অন্য কোন মেজারিং কাফ বোঝানো হয় নি এখানে। ভাত বেশি খেলে কি হয়?

যারা বিস্কুট নুডলস পাস্তা এবং অন্যান্য শর্করা জাতীয় খাবার বেশি পরিমাণে খেয়ে থাকেন তাদের জন্য কিন্তু এই ভাত খাওয়ার পরিমাণ টা একটু কমিয়ে দিতে হবে। বাট এ কমপ্লিট কার্বোহাইড ভাঙতে অনেক বেশি সময় লাগে শরীরে, তাই যারা ওজন বাড়ার বয় ভাত খাওয়া থেকে বিরত থাকছেন তাদের দুশ্চিন্তা করার কোন কারণ নেই। বরং ভাতেজে বাড়তি পানি থাকে তা আমাদের আদ্র আবহাওয়ার সঙ্গে মানিয়ে নেয়ার জন্য একান্ত প্রয়োজনীয়, তবে ভাত নিয়ে মনে যে ভীতি কাজ করে তাই এখনই জেরে ফেলুন।

ভাত মাছ সবজি ডাল সব একসঙ্গে খান সুস্থ থাকুন। সুন্দর থাকুন।
https://www.youtube.com/watch?v=gK3Ha0i2Vrc

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *